1. abulkasem745@gmail.com : abulkasem745 :
  2. Amranahmod9852@gmail.com : Amranahmod Amranahmod : Amranahmod Amranahmod
  3. Arafathussain736@gmail.com : Arafathussain736 :
  4. didar.kulaura@gmail.com : didarkulaura :
  5. Press.loskor@gmail.com : Press loskor : Press loskor
  6. Rezwanfaruki@gmail.Com : HolyBd24.com :
  7. Sohelrana9019@gmail.com : M Sohel Rana : M Sohel Rana
  8. syedsumon22@yahoo.com : syed sumon : syed sumon
মঙ্গলবার, ১৭ নভেম্বর ২০২০, ০৩:০৬ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
কোরবানপুর যুব সমাজের উদ্যোগে দেশের এবং প্রবাসীদের অর্থায়নে অবহেলিত রাস্তার আংশিক মেরামতের কাজ শুরু মাওলানা ভাসানী বেঁচে থাকবেন অনাদিকাল জুড়ে- আওয়ামী নেতা  আব্দুল শহীদ কাজল  সিসি ক্যামেরা ছিল না সেই ব্যাংকে, ডাকাতির ঘটনায় আটক ৩ বেনাপোলে দুই সিঅ্যান্ডএফ এজেন্টের লাইসেন্স বাতিল চলে গেলেন প্রধানমন্ত্রীর চাচি রিজিয়া নাসের মানুষের সঙ্গে কোনোমতেই খারাপ ব্যবহার করা যাবে না – আইজিপি ঘটনা শুন্য! পাল্টা মামলা : যশোর সদর পুলিশের পোয়া বারো সিলেটের উপকণ্ঠ কুমারগাঁও বিদ্যুৎ উৎপাদন ও বিতরণ কেন্দ্র আগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে ফেসবুক লাইভে ক্রিকেটার সাবিক আল হাসানকে হত্যার হুমকিদাতা মহসীন র্যা বের হাতে আটক। মজলুম জননেতা মাওলানা ভাসানীর ৪৪তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ ট্রাফিক বিভাগের চতুর্থ দিনের অভিযানে ৭২ টি যানবাহন আটক ও ৩৩ টি প্রসিকিউশন দাখিল

ফ্রান্সে হজরত মুহাম্মদ (সা.)-কে কটাক্ষ করে ব্যঙ্গচিত্র প্রদর্শন করা এবং কিছু কথা

এমরান আহমেদ
  • আপডেটের সময় : শুক্রবার, ৩০ অক্টোবর, ২০২০
  • ১২ বার ভিউ

সম্প্রতি ফ্রান্সে বিশ্বনবী ও শ্রেষ্ঠনবী হজরত মুহাম্মদ (সা.)-কে কটাক্ষ করে ব্যঙ্গচিত্র প্রদর্শন করা হয়েছে। এরপূর্বে মার্কিন চলচ্চিত্র নির্মাতা স্যাম বাসিল ও তার কলাকুশলীরা ‘ইনোসেন্স অব মুসলিম’ নামক চলচ্চিত্রে মহানবী হজরত মুহাম্মদ মোস্তফা (সা.)-কে অত্যন্ত অশালীন ও বিকৃতভাবে বিদ্রুপ করেছিল। এসব ঘটনায় একজন মুসলমান হিসেবে আমাদের হৃদয় ক্ষত-বিক্ষত হয়েছে আর এমনটা প্রত্যেক মুসলমানেরই হওয়ার কথা। আমরা এর তীব্র নিন্দা জানাই —- এমরান আহমেদ 

বিশ্বনবী ও খাতামান্নাবেঈন হজরত মুহাম্মদ (সা.) যাকে সাদা-কালো, ধনি-গরীব সবার ত্রাণ কর্তা হিসেবে আল্লাহতায়ালা প্রেরণ করেছেন, তার বিরুদ্ধে কেউ যদি বিকৃতভাবে কিছু উপস্থাপন করে সে ক্ষেত্রে তাকে উন্মাদ বলা ছাড়া আর কি-বা বলা যেতে পারে। কেননা এই উন্মাদদের এমন হীন আচরণে বিশ্বনবীর সম্মানে কি সামান্যতম ঘাটতি দেখা দিবে? অবশ্যই না, বরং এতে মুসলিম উম্মাহ মহানবীর (সা.) অতুলনীয় জীবনাদর্শ সবার কাছে আরো ভালো করে তুলে ধরার চেষ্টা করবে।

যেই মহান রাসুলের জন্য আল্লাহতায়ালা এ জগৎ সৃষ্টি করেছেন তার সম্মানের ওপর আঘাত হানবে এমন সাহস কি কারো আছে? বিধর্মীরা যত চেষ্টাই করুক না কেন কিন্তু শ্রেষ্ঠনবীর সন্মানে এক চুল পরিমাণও বেঘাত ঘটবে না, কারণ এই মহান নবীর সম্পর্কে স্বয়ং আল্লাহতায়ালা যেখানে এই সার্টিফিকেট দিয়ে দিয়েছেন যে, ‘ওয়া ইন্নাকা লা আলা খুলুকিন আজীম’ অর্থাৎ নিশ্চয় আপনি মহান চরিত্রের ওপরে অধিষ্ঠিত’ (সুরা কলম: আয়াত ৪)। তাই যারা এমন গর্হিত কাজে জড়িত তারা ইসলামের কোন ক্ষতি করতে পারবে না বরং তারা নিজেরাই ধ্বংস হয়ে যাবে। আমাদের দেখা উচিৎ, মহানবী (সা.)কে যারা কটাক্ষ করার চেষ্টা করে এবং চলচ্চিত্র নির্মান করে তারা কোন পর্যায়ের ব্যক্তি। আমরা যদি ক্ষতিয়ে দেখি তাহলে দেখব এই ধরনের লোকদের কোন ধর্ম নেই এবং তাদের চরিত্রও ঠিক নেই। কেননা কোন ভাল চরিত্রের অধিকারী ব্যক্তি, সে যে ধর্মেরই অনুসারী হোক না কেন তারা এমন কাজ করতে পারে না।

আমরা দেখতে পাই মার্কিন চলচ্চিত্র নির্মাতা স্যাম বাসিল ও তার কলাকুশলীরা মূলত অশ্লিল ও নগ্ন ছবি নির্মাণ করে থাকে, এদের মত লম্পটদের কথায় কি ইসলাম কলঙ্কিত হয়ে যাবে? মহানবী (সা.)-এর সম্মানের হানী হবে? অবশ্যই তা কখনো হতে পারে না। কেননা ইসলামই কেবল একমাত্র পরিপূর্ণ ধর্ম। তবে আমরা এধরনের গর্হিত কাজের তীব্র নিন্দা জানাই এবং আল্লাহপাকের দরবারে তাদের হেদায়েতের জন্য দোয়া করি। যখন কেউ ইসলামের অবমাননা, কোরআনের অবমাননা এবং রাসুলের (সা.) অবমাননা করবে এর প্রতিবাদ আমরা অবশ্যই করব। তবে আমাদের প্রতিবাদের ধরণ হবে শ্রেষ্ঠনবীর অনুপম আদর্শের প্রতিফলন ঘটিয়ে। কোন দেশের পতাকা পুড়িয়ে বা কোন দেশের রাষ্ট্রদূতের ওপর হামলা চালিয়ে বা হত্যা করে অথবা অগ্নিসংযোগ ও অপহরণ করে এর প্রতিবাদ আমরা করব না। কারণ এগুলোর কোনটাই ইসলাম আমাদেরকে অনুমতি দেয় না।

আমাদের প্রতিবাদের ধরণ হবে ইসলামের প্রকৃত সৌন্দর্য, কোরআনের অনিন্দ্য সুন্দর শিক্ষা এবং বিশ্বনবী হজরত মুহাম্মদ (সা.)-এর অতুলনীয় আদর্শ সারা বিশ্বের মাঝে ফুটিয়ে তোলা। প্রতিটি দেশে বড় বড় সভা-সেমিনার করা, কোরআন প্রদর্শনীর ব্যবস্থা করা এবং সকল ধর্মের লোকদের ডেকে ইসলামের শান্তির শিক্ষা সম্পর্কে অবগত করা। আর এ কাজের জন্য যে বিষয়েটি সবচেয়ে প্রথমে প্রয়োজন তাহল সারা বিশ্বের মুসলমানদের ঐক্যবদ্ধ হওয়া। আজকে সারা বিশ্বের মুসলমানদের যদি এক ঐশী নেতা থাকত তাহলে এধরণের গর্হিত কাজের কথা কেউ চিন্তাও করতে পারত না।

আমরা যদি প্রতিবাদ করতে গিয়ে ইসলামের আদর্শ ভুলে জুলুম নির্যাতনের রাস্তা অবলম্বন করি তাহলে বিধর্মীরা এটা বলতে আরো সাহস পাবে যে, মুসলমানরা সন্ত্রাসী আর এরাই পৃথিবীতে সন্ত্রাসী কার্যক্রম চালাচ্ছে। নাউযুবিল্লাহ। তাই বিধর্মীদেরকে কোনভাবেই অভিযোগের সুযোগ দেয়া আমাদের মোটেও ঠিক হবে না। আমরা যদি প্রতিবাদ করতে গিয়ে দেশের রাস্তা বন্দ করে রেখে জনগনের কষ্ট দেই তা কিন্তু শ্রেষ্ঠ নবীর আদর্শের বিপরিত হবে।

কাজি নজরুল ইসলাম তার কবিতায় কত চমৎকারভাবেই না বলেছেন ‘রাসুলের অপমানে যদি কাঁদেনা তোর মন, মুসলিম নয় মুনাফিক তুই রাসুলের দুশমন।’ আসলেই তাই, ইসলামের বিরুদ্ধে যখন কোন বিষয়ে অভিযোগ হানা হয় তখন প্রতিটি মুসলমানের হৃদয় কাদে এবং ব্যথা পায় আর এটাই স্বাভাবিক।

আজ যারা বিশ্বনবী ও শ্রেষ্ঠনবী (সা.) সম্পর্কে কটাক্ষ করে তারা কি এটা জানে না যে, মহানবী (সা.) তো শুধু ইসলামের অনুসারীদের নবী নোন, তিনি তো সারা বিশ্বের সকল জাতি এবং সকল ধর্মের নবী। আর আল্লাহতায়ালা এই মহান নবীকে সমগ্র বিশ্বের জন্য শান্তি ও রহমত হিসেবে পাঠিয়েছেন। এই নবীর আগমন বার্তা সকল নবীরাই (আ.) দিয়েগেছেন এবং অন্যান্য নবীগণ এই নবীর উম্মত হওয়ার ইচ্ছাও পোষন করেছেন।

নাউযুবিল্লাহ! আজ সেই মহান রাসুলকে নিয়ে কটাক্ষ করা হচ্ছে। অথচ এই শ্রেষ্ঠনবী (সা.) পশুতুল্য মানুষকে ফেরেশতায় রূপান্তর করেছিলেন। আইয়্যামে জাহেলিয়াতের যুগে মানুষ যখন সমাজ তাদের নিজস্ব পরিচয় মনুষত্ব হারিয়ে ইচ্ছা মাফিক ও স্বেচ্ছাচারী জীবন নিয়ে মত্ত ছিল ঠিক তখনই কোরাইশ বংশের মাধ্যমে মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামিন আরব জাহান তথা বিশ্ব মানবকূলের জন্য প্রেরণ করেন শান্তির বাণী দিয়ে হজরত মুহাম্মদ মোস্তফা (সা.)কে। জন্মলগ্ন থেকে যাঁর উছিলায় শান্তির স্বপক্ষে আল্লাহর পক্ষ থেকে বিশ্বময় রহমত আসতে থাকে। কতই না চমৎকার তার আদর্শ, বিশ্বস্থতা, একনিষ্ঠতা, সত্য, ন্যায় এবং ইসলামের শান্তির কথা বলে, কোটি কোটি হৃদয়কে আকর্ষিত করেছিলেন। সমাজে তার (সা.) লড়াই ছিল শান্তি প্রতিষ্ঠার লড়াই আর এ লড়াই ছিল ভালবাসার মাধ্যমে।

শেষে এটাই বলব, যারা আজ বিশ্বনবীকে (সা.) নিয়ে কটাক্ষ করে আল্লাহতায়ালা এ ধরণের জঘন্য ব্যক্তিদেরও হেদায়াত দান করুন এবং তারা যেন তাদের অন্যায় উপলব্ধি করতে পারে। একই সাথে মুসলিম উম্মাহ হিসেবে আমরাও যেন প্রকৃত ইসলামের শিক্ষা এবং শ্রেষ্ঠনবীর আদর্শ মোতাবেক জীবন পরিচালনা করতে পারি, সেই তৌফিক আল্লাহ আমাদেরকে দান করুন, আমিন

নিউজ টি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর

উপদেষ্টা মন্ডলী

কাউন্সিলর এডভোকেট ছালেহ আহমদ সেলিম,
এডভোকেট গিয়াস উদ্দিন আহমদ,
প্রভাষক ডাঃ আক্তার হোসেন,
প্রকাশনা ও সম্পাদক রেজওয়ান আহমদ,
প্রধান সম্পাদক কবি এম এইচ ইসলাম,
বার্তা সম্পাদক এমরান আহমদ,
ব্যবস্হাপনা সম্পাদক আব্দুল আলী দেওয়ান আব্দুল্লাহ,
সহ ব্যবস্হাপনা সম্পাদক আমির হোসেন,
সাহিত্য সম্পাদক কবি সোহেল রানা,
বিভাগীয় সম্পাদক আমিনুর ইসলাম দিদার

© All rights reserved © 2020 Holybd24.com
Design & Developed BY Serverneed.com