1. abulkasem745@gmail.com : abulkasem745 :
  2. Amranahmod9852@gmail.com : Amranahmod Amranahmod : Amranahmod Amranahmod
  3. Arafathussain736@gmail.com : Arafathussain736 :
  4. didar.kulaura@gmail.com : didarkulaura :
  5. dorothy.carrington43@bevilaqua.funny3delements.com : dorothycarringto :
  6. Press.loskor@gmail.com : Press loskor : Press loskor
  7. Rezwanfaruki@gmail.Com : HolyBd24.com :
  8. Sohelrana9019@gmail.com : M Sohel Rana : M Sohel Rana
  9. syedsumon22@yahoo.com : syed sumon : syed sumon
রবিবার, ২২ মে ২০২২, ১১:৩৮ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
কোরবানপুর যুব সমাজের উদ্যোগে দেশের এবং প্রবাসীদের অর্থায়নে অবহেলিত রাস্তার আংশিক মেরামতের কাজ শুরু মেহেরপুরের গাংনীতে ডাচ্ বাংলা ব্যাংক এজেন্ট ব্যাংকিং এর শুভ উদ্বোধন বাংলাদেশ ব্যাংকের কর্মকর্তাদেরও অফিসিয়াল কাজে বিদেশ যাওয়া নিষিদ্ধ তাহিরপুরে ভূমি সেবা সপ্তাহ উদ্ভোধন আট বিভাগেই বৃষ্টির পূর্বাভাস অর্থনীতি সমিতির ২০ লাখ ৫০ হাজার কোটি টাকার বিকল্প বাজেট পেশ সর্বনিম্ন ২৫ হাজার টাকা বেতন চান সরকারি কর্মচারীরা নরসিংদীতে মা ও দুই সন্তানের গলাকাটা মরদেহ উদ্ধার বিশ্ব মেট্রোলজি দিবস উপলক্ষ্যে আলোচনা সভা বঙ্গবন্ধুর দৌহিত্র ববির জন্মদিন আজ জুনে পদ্মা সেতুতে দাঁড়িয়ে মানুষ পূর্ণিমার চাঁদ দেখবে : কাদের

এবার ঈদ হবে না উপকূলে!

প্রতিবেদকের নাম
  • আপডেটের সময় : শুক্রবার, ২২ মে, ২০২০
  • ৪৫ বার ভিউ

হলিবিডি প্রতিনিধিঃঃ   দু’দিন পরই মুসলমানদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব পবিত্র ঈদ উল ফিতর উদ্যাপিত হবে। খুলনার শহরাঞ্চলের মার্কেট পাড়ায় ঈদ উৎসবের আমেজ দেখা গেলেও এবার ঈদ হবে না উপকূলে। ঘূর্ণিঝড় আম্পানের তাণ্ডবে খুলনা উপকূলীয় অঞ্চলের প্রায় লক্ষাধিক মানুষ দুর্গত অবস্থায় ঈদ উদ্যাপন করবে।

সরকারি তথ্যমতে, ঘূর্ণিঝড় আম্পানে খুলনায় সর্বাধিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে উপকূলীয় উপজেলা কয়রা। ঘূর্ণিঝড় আম্পানের তাণ্ডবে খুলনার কয়রা উপজেলার দক্ষিণ বেদকাশি, উত্তর বেদকাশি, মহেশ্বরীপুর, কয়রা সদর ও মহারাজপুর ইউনিয়নের প্রায় দেড় লাখ মানুষ দুর্গত হয়েছেন। কয়রার ২৪টি স্থানে ভেড়ীবাঁধ ভাঙনে প্রায় ৪০ হাজার মানুষ গৃহহীন হয়ে দুর্গত অবস্থায় দিনযাপন করছে। এছাড়া পাইকগাছার ১০ ও বটিয়াঘাটার ৭টি ইউনিয়নের ৪০ হাজার মানুষের ঘরবাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। খুলনার নয়টি উপজেলায় ৮০ সহস্রাধিক পরিবার আম্পানে কারণে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।
উপকূলবাসীদের সাথে কথা বলে জানা যায়, ঈদ উদ্যাপন তো দূরের কথা মাথা গোঁজার ঠাঁইটুকুও নেই অধিকাংশ উপকূলীয় মানুষের। ঈদের দিনে সবাইকে থাকতে পারে খোলা আকাশের নিচে। ঈদকে ঘিরে উপকূলীয় পরিবারে নেই কোনো আমেজ। ঈদের দিনটিতে আনন্দ তো দূরের কথা ভালো-মন্দ খাবারও জুটবে না অনেকের। ঘরবাড়ি ভেঙে যাওয়ায় উপকূলের অনেক মানুষ আশ্রয় নিয়েছেন ভালো থাকা বাঁধের ওপর। ঝড়ে ধ্বংস হয়ে গেছে অসংখ্য বাড়িঘর, গাছপালা। তলিয়ে গেছে অনেক চিংড়ির ঘের। মৌসুমী সবজির ক্ষেত ভেসে গেছে। এছাড়াও উপকূলের অনেক স্থানেই লোকালয়ে পানি ঢুকে পরায় পানিবন্দি আছে গ্রামবাসী। কোনো প্রাণহানির খবর পাওয়া না গেলেও গবাদিপশুর ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। আগে ছিলো করোনার থাবা, এবার যোগ হলো আম্পানের আঘাত।
কয়রা উন্নয়ন সংগ্রাম সমন্বয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক ইমতিয়াজ উদ্দিন বলেন, ঈদ উদ্যাপন তো দূরে থাক কয়রার মানুষ এখন বআচার আশা করছে। প্রতিবার জোয়ার আসলেই নতুন করে কয়রার বিভিন্ন এলাকা পানিতে তলিয়ে যাচ্ছে। কয়রার উত্তর বেদকাশী, সদরসহ বিভিন্ন এলাকা এখনো পানিতে ভাসছে। ঝড় শেষ হবার ২ দিন পরেও কয়রায় আসেনি কোনো সাহায্য সহযোগিণা।
কয়রার দক্ষিণ বেদকাশীর বাসিন্দা আবু সাঈদ খান বলেন, ঝড়ে সবার বাড়িঘর ভাঙায় যে বাড়িগুলো একটু ভালো আছে সেখানে দলবেধে সবাই আশ্রয় নিচ্ছে। আমার বাড়িতেও ৬০/৭০ জন আশ্রয় নিয়েছে। জোয়ারের সময় গ্রামবাসীকে নিয়ে বাঁধ পাহারা দিচ্ছি। শুনছি শনিবার থেকে সেনাবাহিনীর সদস্যরা বাঁধ সংস্কারের কাজ করবে তবে এখনো কেউ আসেনি। তাছাড়া করোনা মহামারির এ সময়ে সবাইকে ঘরে থাকার পরামর্শ দেয়া হয়েছিলো, কিন্তু যাদের ঘরই নেই তারা থাকবে কোথায়? খাবার কিছু নেই, থাকার ঘরে নেই-তাই আমাদের ঈদও নেই।
খুলনা-৬ আসনের সংসদ সদস্য আক্তারুজ্জামান বাবু বলেন, ঘূর্ণিঝড় আম্পানে আমার কয়রায় সবথেকে বেশী ক্ষতি হয়েছে। দ্রুত অনেক স্থানেই বাঁধ সংস্কার করেছি। তবে প্রতিবার জোয়ারের পানির চাপে বাঁধ ভেঙে যাওয়ার ফলে নতুন এলাকা প্লাবিত হচ্ছে। আমরা যতদূর সম্ভব চেষ্টা করছি সকল ভেড়ীবাঁধ অতি দ্রুত সম্ভব সংস্কার করার। শনিবার থেকে সেনাবাহিনীর তত্ত্বাবধানে বাঁধের কাজ শুরু হবে। এছাড়া শিগগিরই উপকূলীয় অঞ্চলে ত্রাণ সামগ্রী পৌঁছাবে বলে জানান তিনি।

নিউজ টি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই বিভাগের আরও খবর

উপদেষ্টা মন্ডলী

কাউন্সিলর এডভোকেট ছালেহ আহমদ সেলিম,
এডভোকেট গিয়াস উদ্দিন আহমদ,
প্রভাষক ডাঃ আক্তার হোসেন,
প্রকাশনা ও সম্পাদক রেজওয়ান আহমদ,
প্রধান সম্পাদক কবি এম এইচ ইসলাম,
বার্তা সম্পাদক এমরান আহমদ,
ব্যবস্হাপনা সম্পাদক আব্দুল আলী দেওয়ান আব্দুল্লাহ,
সহ ব্যবস্হাপনা সম্পাদক আমির হোসেন,
সাহিত্য সম্পাদক কবি সোহেল রানা,
বিভাগীয় সম্পাদক আমিনুর ইসলাম দিদার

© All rights reserved © 2020 Holybd24.com
Design & Developed BY Serverneed.com