1. abulkasem745@gmail.com : abulkasem745 :
  2. Amranahmod9852@gmail.com : Amranahmod Amranahmod : Amranahmod Amranahmod
  3. Arafathussain736@gmail.com : Arafathussain736 :
  4. didar.kulaura@gmail.com : didarkulaura :
  5. Press.loskor@gmail.com : Press loskor : Press loskor
  6. Rezwanfaruki@gmail.Com : HolyBd24.com :
  7. Sohelrana9019@gmail.com : M Sohel Rana : M Sohel Rana
  8. syedsumon22@yahoo.com : syed sumon : syed sumon
মঙ্গলবার, ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৮:৪৯ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
কোরবানপুর যুব সমাজের উদ্যোগে দেশের এবং প্রবাসীদের অর্থায়নে অবহেলিত রাস্তার আংশিক মেরামতের কাজ শুরু সিলেট-তামাবিল রোডে মসজিদ কবরস্থান রক্ষায় প্রধানমমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা কেএমপি’র মাদক বিরোধী অভিযানে ইয়াবা ও গাঁজাসহ আটক ছয় সাতক্ষীরায় অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ অভিযান শুরু খুলনায় ৩৭৪ পিস ইয়াবাসহ গ্রেপ্তার ১ ঢাকা বিভাগীয় কল্যাণ সমিতির কার্যকরী ও উপদেষ্টা পরিষদের সভা অনুষ্ঠিত মেহেরপুর জেলার করোনা পরিস্থিতি আপডেট যৌনপল্লিতে বিদ্যালয় সম্প্রসারণ এবং হোস্টেল নির্মাণের উদ্বোধন প্রতিটি শিশুর শিক্ষার অধিকার রয়েছে -সমাজকল্যাণ মন্ত্রী জাতিসংঘ শান্তিরক্ষী প্রেরণকারী দেশ হিসেবে বাংলাদেশ প্রথম স্থান অর্জন করায় বাংলাদেশ পুলিশ গর্বিত জেলা আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভা অনুষ্ঠিত অপরাধিকে সাঁজা দিয়েই আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা করতে হবে- আইন মন্ত্রী

যুব মহিলা লীগের বহিস্কৃত নেত্রী পাপিয়ার কাছে কারা যেতেন

প্রতিবেদকের নাম
  • আপডেটের সময় : রবিবার, ১ মার্চ, ২০২০
  • ৩ বার ভিউ

হলিবিডি প্রতিনিধিঃ শামিমা নূর পাপিয়া ওয়েস্টিন হোটেলে অবস্থানকালে কারা কারা তার কাছে যেতেন, তাদের নাম হোটেল কর্তৃপক্ষের কাছে চেয়েছে গোয়েন্দা পুলিশ। পাপিয়াকে গ্রেফতারের পর তার বিরুদ্ধে বিমানবন্দর থানায় দায়ের করা মামলার তদন্ত এখন ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ করছে।
তদন্ত সংশ্লিষ্ট এক কর্মকর্তা শনিবার বলেন, “হোটেলে অবস্থানের সময় পাপিয়া কার কার সাথে দেখা করেছেন বা তার কাছে কারা কারা আসতেন, সে ব্যাপারে তথ্য সংগ্রহ করা হচ্ছে। “সিসি ফুটেজসহ প্রয়োজনীয় তথ্য দিতে হোটেল কর্তৃপক্ষের কাছে অনুরোধ করা হয়েছে। একই সাথে এই হোটেলে তিনি কীভাবে বিল দিতেন, তার ক্যাশ মেমো চাওয়া হয়েছে।”
পাঁচ তারা ওয়েস্টিন হোটেলের প্রেসিডেনশিয়াল সুইট, যার প্রতিরাতের ভাড়া ২ হাজার ডলারের মতো, ভাড়া করে পাপিয়া যৌনবাণিজ্য চালাতেন বলে র‌্যাবের ভাষ্য।
গত ২২ ফেব্র“য়ারি পাপিয়াকে গ্রেফতারের পর র‌্যাব-১ এর অধিনায়ক শাফী উল্লাহ বুলবুল বলেছিলেন, “তার নামে ওই হোটেলের ‘প্রেসিডেনশিয়াল স্যুইট’ সব সময় বরাদ্দ থাকত। তবে ওয়েস্টিন কর্তৃপক্ষ দাবি করছে, পাপিয়ার কারবারের বিষয়ে তারা কিছুই জানতেন না।
পাপিয়া গ্রেফতার হওয়ার পর জিজ্ঞাসায় ওয়েস্টিনের মার্কেটিং কমিউনিকেশন বিভাগের সহকারী পরিচালক সাদমান সালাহউদ্দিন বলেন, “উনি (পাপিয়া) আমাদের স্যুইট নিয়েছিলেন। “এটা বিশাল আকারের তো, উনার গেস্টরা সেখানে ছিলেন। তিনি কাদেরকে নিয়ে সেখানে অবস্থান করেছেন কিংবা কতজন ছিলেন, সে বিষয়ে কোনো তথ্য পাবলিকলি প্রকাশ করা হোটেলের নিয়ম পরিপন্থি।”
তবে পাপিয়া বিষয়ে হোটেল কর্তৃপক্ষ দায় এড়াতে পারে না বলে মনে করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্যুরিজম এ্যান্ড হসপিটালিটি ম্যানেজমেন্ট বিভাগের সাবেক অধ্যাপক ড. শাকের আহমেদ।
গোয়েন্দা পুলিশের উপ-কমিশনার মশিউর রহমান প্রশ্নে বলেন, “মামলার তদন্তের প্রয়োজনে যে সব তথ্যের প্রয়োজন তা সংগ্রহ করা হচ্ছে। এসব ব্যাপারে পুরো তথ্য সংগ্রহ করে নিশ্চিত না হওয়া পর্যন্ত কিছু বলা যাবে না।”
গোয়েন্দা পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার আবদুল বাতেন বলেন, “তার (পাপিয়া) বিরুদ্ধে যেসব অভিযোগ উঠেছে, আমরা তা তদন্ত করছি। অভিযোগের সত্যতা এবং ক্রিমিনাল অপরাধগুলো চিহ্নিত করছি।”
ডিবি’র আগে মামলার তদন্তে থাকা বিমানবন্দর থানার পরিদর্শক কায়কোবাদ কাজী একদিন পাপিয়াকে জিজ্ঞাসাবাদের পর বলেছিলেন, আ’লীগের ‘কিছু শীর্ষ নেতার সাথেও’ পাপিয়ার সম্পর্ক ছিল। “তবে এই সম্পর্ক সাংগঠনিক নাকি একান্তই ব্যক্তিগত পর্যায়ের, সে বিষয়ে তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করে নিশ্চিত না হওয়া পর্যন্ত কিছু বলা যাবে না।”
গতকাল শনিবার এক সংবাদ সম্মেলনে ডিবি কর্মকর্তা আবদুল বাতেন সাংবাদিকদের একের পর এক প্রশ্ন এড়িয়ে গিয়ে বলেন, “এ বিষয়ে এখন আর নয়, পরে জানাব।”
এদিকে পাপিয়া গ্রেফতারের পর তাকে পুলিশের হাতে তুলে দিলেও তদন্ত চালিয়ে যাচ্ছে র‌্যাব। র‌্যাব কর্মকর্তারা বলছেন, তারা ভিডিও ফুটেজসহ পাপিয়ার কর্মকাণ্ডের বেশ কিছু আলামতও পেয়েছেন। তদন্তের দায়িত্ব পেলে তা যাচাইয়ে কাজ করবেন। আবার যে সব তরুণীরা পাপিয়ার সঙ্গে ছিলেন, তাদের সঙ্গে কথা বলেও নানা তথ্য পাওয়ার কথা জানিয়েছেন র‌্যাব কর্মকর্তারা।
পাপিয়াকে গ্রেফতারের পর র‌্যাব শেরে বাংলা নগর থানায় দু’টি এবং বিমানবন্দর থানায় একটি মামলা দায়ের করে। বিমানবন্দর থানায় একটি মামলা করা হয় জাল মুদ্রা উদ্ধারের ঘটনায়। অস্ত্র ও মদ উদ্ধারের ঘটনায় শেরেবাংলা নগর থানায় হয় অন্য মামলা দু’টি। বর্তমানে বিমানবন্দর থানার মামলায় গোয়েন্দা পুলিশের রিমান্ডে রয়েছেন পাপিয়া ও তার স্বামী মফিজুর রহমান ওরফে সুমন চৌধুরী (মতি সুমন)। তবে পাপিয়ার বাসায় অস্ত্র ও মদ পাওয়ার মামলা দু’টি এখনও শেরেবাংলা নগর থানার হাতে রয়েছে, সেগুলো তদন্তের জন্য এখনও ডিবিতে যায়নি।
শেরে বাংলা নগর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আবুল কালাম আজাদ শনিবার সন্ধ্যায় বলেন, মামলা দু’টির তদন্তভার তাদের হাতেই থাকলে রবিবার ওই দুই মামলায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পাপিয়াকে থানায় আনা হবে। পাপিয়াকে তিনটি মামলায় পাঁচ দিন করে ১৫ দিন জিজ্ঞাসাবাদের আদেশ ইতোমধ্যে আদালত দিয়েছে।

নিউজ টি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর

উপদেষ্টা মন্ডলী

কাউন্সিলর এডভোকেট ছালেহ আহমদ সেলিম,
এডভোকেট গিয়াস উদ্দিন আহমদ,
প্রভাষক ডাঃ আক্তার হোসেন,
প্রকাশনা ও সম্পাদক রেজওয়ান আহমদ,
প্রধান সম্পাদক কবি এম এইচ ইসলাম,
বার্তা সম্পাদক এমরান আহমদ,
ব্যবস্হাপনা সম্পাদক আব্দুল আলী দেওয়ান আব্দুল্লাহ,
সহ ব্যবস্হাপনা সম্পাদক আমির হোসেন,
সাহিত্য সম্পাদক কবি সোহেল রানা,
বিভাগীয় সম্পাদক আমিনুর ইসলাম দিদার

© All rights reserved © 2020 Holybd24.com
Design & Developed BY Serverneed.com