1. abulkasem745@gmail.com : abulkasem745 :
  2. Amranahmod9852@gmail.com : Amranahmod Amranahmod : Amranahmod Amranahmod
  3. Arafathussain736@gmail.com : Arafathussain736 :
  4. didar.kulaura@gmail.com : didarkulaura :
  5. Press.loskor@gmail.com : Press loskor : Press loskor
  6. Rezwanfaruki@gmail.Com : HolyBd24.com :
  7. Sohelrana9019@gmail.com : M Sohel Rana : M Sohel Rana
  8. syedsumon22@yahoo.com : syed sumon : syed sumon
রবিবার, ২৫ অক্টোবর ২০২০, ১০:৫৬ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
কোরবানপুর যুব সমাজের উদ্যোগে দেশের এবং প্রবাসীদের অর্থায়নে অবহেলিত রাস্তার আংশিক মেরামতের কাজ শুরু ফেঞ্চুগঞ্জের ঘিলাছড়ার পুজো মান্ডপ পরিদর্শনে চেয়ারম্যান লেইছ চৌধুরী সহ জনপ্রতিনিধি  রাজনগরে আওয়ামী লীগের উদ্যোগে বিভিন্ন পূজা মন্ডপে উপহার সামগ্রী বিতরণ আদালতে ৩ কনস্টেবলের জবানবন্দি পুলিশ ফাঁড়িতে রায়হান হত্যার লোমহর্ষক বর্ণনা রায়হান হত্যাকারীদের শাস্তি নিশ্চিতের দাবিতে রাজপথে আন্দোলন চলবে-মানববন্ধনে বক্তারা আলোচিত ১০ স্কুল প্রকল্পে ৩শ কোটি টাকা লোপাটের প্রমাণ পায়নি সাবেক অ্যাটর্নি জেনারেল, দেশের প্রখ্যাত আইনজীবী ব্যারিস্টার রফিক-উল হক আর নেই আলহাজ্ব সৈয়দ আতাউর রহমানের ইন্তেকাল, দেশের ইসলামী আন্দোলনের এক নীরব স্বাক্ষীর বিদায় জাল টাকার কারবার বন্ধে বিশেষ আইনে মামলা করবে পুলিশ সরকার নারী গাড়ি চালক তৈরিতে সুযোগ বাড়াচ্ছে’ বখাটেকে কুপিয়ে সম্ভ্রম রক্ষা পেল গৃহবধূর

বিশ্বনাথে সংখ্যালঘু যুবকের উপর হেলাল মেম্বার বাহিনীর হামলা

প্রতিবেদকের নাম
  • আপডেটের সময় : রবিবার, ২৬ জানুয়ারী, ২০২০
  • ১১ বার ভিউ

বিশ্বনাথ প্রতিনিধি :: গোসলরত ছেলে-মেয়ের সামনে সেলফি তুলতে বাঁধা দেওয়ার জের ধরে সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলার লামাকাজী ইউনিয়নের দিঘলী গ্রামে সঞ্জয় ভট্টাচার্য্য বিজু (৪০) নামক এক সংখ্যালঘু যুবকের উপর হামলা করা হয়েছে। আহত সঞ্জয় লামাকাজী ইউনিয়ন হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করছেন। শনিবার বেলা আনুমানিক ১২.৪৫টার দিকে লামাকাজী ইউনিয়ন পরিষদের ১নং ওয়ার্ডের মেম্বার হেলাল মিয়ার নেতৃত্বে ওই হামলা করা হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।
হামলার ঘটনায় আহত সংখ্যালঘু যুবক সঞ্জয় ভট্টাচার্য্য বিজু বাদী হেলাল মিয়া মেম্বারকে প্রধান অভিযুক্ত করে ৪ জনের নাম উল্লেখ এবং আরো ৪/৫ জনকে অজ্ঞাতনামা অভিযুক্ত করে বিশ্বনাথ থানায় মামলা দায়ের করেছেন। মামলা নং ২০ (তাং ২৬.০১.২০ইং)। মামলার অন্যান্য অভিযুক্তরা হলেন- মাহতাবপুর গ্রামের মৃত বদর উদ্দিনের পুত্র জুবায়ের আহমদ শিবলু (২৫), মাধবপুর গ্রামের আশক আলীর পুত্র সুহেল মিয়া (২৬), মৃত আবদুল খালিকের পুত্র জমির উদ্দিন (৫০)।
বাদী তার লিখিত অভিযোগে উল্লেখ করেছেন, তিনি একজন পুরোহিত। আর নিজ বাড়িতে ফার্মেসী দিয়ে ব্যবসায় করে জীবিকা নির্বাহ করছেন। এর পাশাপাশি তার বসতবাড়ীর পশ্চিম পার্শ্বে থাকা তাদের মালিকানাধীন প্রায় সাড়ে ৩ একর জমির উপর থাকা দিঘীতে মাছ চাষাবাদ করে থাকেন। আর দিঘীর চতুপার্শ্বে বসবাসরত লোকজন ঘাট তৈরী করে প্রতিনিয়তই দিঘীতে গোসল করাসহ দিঘীর পানি নিত্যপ্রয়োজনীয় কাজে ব্যবহার করছেন। শনিবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মামলার প্রধান অভিযুক্ত হেলাল মিয়া মেম্বারসহ ২/৩ জন লোক উক্ত দিঘীর ঘাটে গিয়ে নিজেদের মোবাইল দিয়ে সেলফি তুলতে থাকেন। এসময় দিঘীর বিভিন্ন ঘাটে নানান বয়সের ছেলে-মেয়েরা গোসল করছিলেন। সেলফি তুলার বিষয়টি দেখে তাই বাদী হেলাল মেম্বারের কাছে গিয়ে তাকে বলেন এখানে অনেক ছেলে-মেয়েরা গোসল করতেছে, এখানে সেলফি তুলতেছেন কেন। এসময় হেলাল গংরা বাদী সঞ্জয়ের সাথে খারাপ আচরণ করতে শুরু করে। এর এক পর্যায়ে বাদীকে বিভিন্ন ধরনের হুমকি-ধামকি দিয়ে নিজের সঙ্গীয় লোকজনকে নিয়ে সেখান থেকে চলে যায় হেলাল মেম্বার। বেলা সাড়ে ১২টার দিকে বাদীর (০১৭১১-৩১১৫৫৯) ব্যক্তিগত মোবাইলে এক অজ্ঞাতনামা ব্যক্তি (০১৭৪৯-৯৮৫৩৩৭) কল করে তাকে (বাদী) স্থানীয় হারান পালের ফার্মেসীর সামনের রাস্তায় আসতে বলেন। সরল বিশ্বাসে অজ্ঞাতনামা ব্যক্তির কথা মতো হারান পালের ফার্মেসীর সামনে পৌঁছা মাত্রই অভিযুক্তরা বাদীর পথরোধ করে তাকে কিল-ঘুষি-লাথি মারা শুরু করে। এক পর্যায়ে মামলার প্রধান অভিযুক্ত হেলাল মিয়া তার সঙ্গিয়দের হুকুম দিয়ে বলে ‘মালাউনের বাচ্চারে মারিয়া ফালাও’। এই হুকুম দিয়ে হেলাল নিজেই বাদীকে বাঁশের লাঠি দিয়ে প্রাণেহত্যা করার জন্য মাথা লক্ষ্য করিয়া আঘাত করে। এরপর ২নং অভিযুক্ত জুবায়ের আহমদ শিবলুও একইভাবে আঘাত করে। তাদের আঘাতের এক পর্যায়ে বাদী সঞ্জয় ভট্টাচার্য্য বিজু মাটিতে পড়ে গেলে সকল অভিযুক্তরা একত্রে তাকে (বাদী) এলোপাতাড়ী মারপিট করে। এসময় তার পকেটে থাকা ৩ হাজার ৭শত টাকা নিয়ে যায় অভিযুক্ত জুবায়ের। বাদীর আতœচিৎকারে আশপাশের লোকজন এগিয়ে আসলে অভিযুক্তরা বাদীর দুই হাত কেটে নেওয়ার হুমকি দিয়ে ঘটনাস্থল ত্যাগ করে। পরবর্তীতে এলাকাবাসী বাদীকে আহত অবস্থায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে সেখানে চিকিৎসা সেবা গ্রহন করেন বাদী।
এব্যাপারে প্রধান অভিযুক্ত হেলাল মিয়া মেম্বার বলেন, ব্যবসার কারণে খাওয়া-ঘুমের সময় পাচ্ছিনা। আর ছবি তুলা পরর কথা। সকল অভিযোগ মিথ্যা। বরং দিঘীতে যাওয়ার কারণে তিনি আমার সাথে চরম খারাপ ব্যবহার করেছেন।
মামলা দায়েরের সত্যতা স্বীকার করে বিশ্বনাথ থানার অফিসার ইন-চার্জ (ওসি) শামীম মুসা বলেন, তদন্ত সাপেক্ষে এব্যাপারে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

নিউজ টি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর

উপদেষ্টা মন্ডলী

কাউন্সিলর এডভোকেট ছালেহ আহমদ সেলিম,
এডভোকেট গিয়াস উদ্দিন আহমদ,
প্রভাষক ডাঃ আক্তার হোসেন,
প্রকাশনা ও সম্পাদক রেজওয়ান আহমদ,
প্রধান সম্পাদক কবি এম এইচ ইসলাম,
বার্তা সম্পাদক এমরান আহমদ,
ব্যবস্হাপনা সম্পাদক আব্দুল আলী দেওয়ান আব্দুল্লাহ,
সহ ব্যবস্হাপনা সম্পাদক আমির হোসেন,
সাহিত্য সম্পাদক কবি সোহেল রানা,
বিভাগীয় সম্পাদক আমিনুর ইসলাম দিদার

© All rights reserved © 2020 Holybd24.com
Design & Developed BY Serverneed.com