1. abulkasem745@gmail.com : abulkasem745 :
  2. Amranahmod9852@gmail.com : Amranahmod Amranahmod : Amranahmod Amranahmod
  3. Arafathussain736@gmail.com : Arafathussain736 :
  4. didar.kulaura@gmail.com : didarkulaura :
  5. Press.loskor@gmail.com : Press loskor : Press loskor
  6. Rezwanfaruki@gmail.Com : HolyBd24.com :
  7. Sohelrana9019@gmail.com : M Sohel Rana : M Sohel Rana
  8. syedsumon22@yahoo.com : syed sumon : syed sumon
রবিবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৪:৪৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
কোরবানপুর যুব সমাজের উদ্যোগে দেশের এবং প্রবাসীদের অর্থায়নে অবহেলিত রাস্তার আংশিক মেরামতের কাজ শুরু বান্দরবান সরকারি কলেজে পাঁচতলা ছাত্রীনিবাসের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন ও কলেজ বাসের উদ্ভোধন করেন মন্ত্রী বীর বাহাদুর মাগুরায় বাস ও মাইক্রোবাসের সংঘর্ষে নিহত ৪, আহত ৩০ পাত্র চাই বিজ্ঞাপনে প্রতারণা : দু’দিনের রিমান্ডে সাদিয়া তিনি কওমি মাদ্রাসার আধুনিকায়নে ভূমিকা রেখেছেন: প্রধানমন্ত্রী সৎ এবং নির্ভীক আলেম ছিলেন আল্লামা শফী: আইজিপি ঢাকা-খুলনা মহাসড়কে বাস চাপায় ছাত্রলীগ নেতাসহ নিহত ৩ ছেলে সেজে মেয়েদের সঙ্গে সমকামিতা, সেই টিকটকার গ্রেফতার করোনার দ্বিতীয় ধাক্কায় ফের লকডাউনে যাচ্ছে ইউরোপ কমছে পেঁয়াজের দাম ভারতে ৯ জন আল কায়দার জঙ্গি আটক

এবার দেশ জুড়ে আলোচনায় পিয়াজ আদার পর এখন রসুন

হলিবিডি প্রতিনিধিঃ দেশ জুড়ে নিত্যপণ্যের মধ্যে এবার আলোচনায় রসুন। কিছুদিন ধরেই এই পণ্যটির মূল্য পিয়াজ আদার পর রসুন দাম বাড়ছে। রাজধানীর বাজারগুলো ঘুরে দেখা গেল,এককেজি দেশি পেঁয়াজ ১২০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। আর দেশি রসুন বিক্রি হচ্ছে ১৬০ টাকা কেজিতে। আর আমদানি করা রসুন কিনতে হচ্ছে ২২০ টাকায়।

ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) এর তথ্য অনুযায়ী, গত এক বছরে দেশি রসুনের মূল্য বেড়েছে ১৯১.৬৭ শতাংশ। আর আমদানি করা রসুনের মূল্য বেড়েছে ১৬০ শতাংশ। তবে গত এক মাসের ব্যবধানে আমদানি করা রসুনের দাম বেড়েছে ৮৮.৮৮ শতাংশ।
খুচরা ব্যবসায়ীদের দাবি, গত বছর যে রসুন ৫০ টাকা কেজিতে পাওয়া যেত এখন সেই রসুন প্রতিকেজি ২০০-২১০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। গত সপ্তাহেও আমদানি করা রসুন প্রতি কেজি ২২০ টাকা দরে বিক্রি হয়েছে। আর দেশি নতুন রসুনের কেজি ১৫০-১৬০ টাকা।
পাইকারি ব্যবসায়ীরা বলছেন, দেশে যত রসুন আমদানি হয় তার ৯৬ শতাংশই আসে চীন থেকে। করোনা ভাইরাসের কারণে প্রায় এক মাস ধরে চীনের সঙ্গে যোগাযোগ বন্ধ থাকায় সেখান থেকে রসুন আসছে না। বিকল্প হিসেবে বর্তমানে ভারত ও মিয়ানমার থেকে অল্প পরিমাণ রসুন আমদানি হচ্ছে।
বাংলাদেশ ট্রেড অ্যান্ড ট্যারিফ কমিশনের তথ্য বলছে, ২০১৯-২০ অর্থবছরের জুলাই থেকে ডিসেম্বর এই ছয় মাসে মোট ৫২ হাজার ৪৬১ টন রসুন আমদানি হয়েছে। এর মধ্যে ৯৬ শতাংশই এসেছে চীন থেকে।
জানা গেছে, দেশে প্রতিবছর রসুনের চাহিদা প্রায় ৬ লাখ টন। এর মধ্যে ১৩-২০ শতাংশ আমদানি করতে হয়। বাকি রসুন দেশেই উৎপাদন হয়। ট্যারিফ কমিশনের হিসেবে, ২০১৮-১৯ অর্থবছরে রসুন উৎপাদিত হয়েছে ৬ লাখ ১৩ হাজার টন। সেখান থেকে পচে যাওয়া রসুন বাদ দিয়ে প্রকৃত উৎপাদন ধরা হয়েছে ৫ লাখ ২২ হাজার টন। তবে বিবিএসের হিসাবে ২০১৮-১৯ অর্থবছরে রসুনের উৎপাদন হয়েছে ৪ লাখ ৬৬ হাজার টন।
এ প্রসঙ্গে পুরান ঢাকার আমদানিকারক আবদুল মাজেদ বলেন, এখন চীন থেকে রসুন আসতে সমস্যা হচ্ছে। যার প্রভাব পড়েছে বাজারে। আশা করছি,আগামী এক মাস পর থেকে ভারতীয় রসুন আমদানি শুরু হবে। দেশীয় নতুন রসুনও উঠতে শুরু করেছে। তখন দাম কমবে।
এ প্রসঙ্গে পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের (পিআরআই) নির্বাহী পরিচালক আহসান এইচ মনসুর বলেন, চীনের সঙ্গে যোগাযোগ ঠিক না হওয়া পর্যন্ত রসুনসহ জিনিসপত্রের দাম এভাবে বাড়তেই থাকবে।
দাম বেড়েছে চিনিরও। এখন প্রতিকেজি চিনি বিক্রি হচ্ছে ৬৫ টাকায়। এছাড়া রাজধানীর বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা গেছে, প্রতিটি লাউ বিক্রি হচ্ছে ৮০ টাকা এবং প্রতিটি ফুলকপি ও বাঁধাকপি বিক্রি হচ্ছে ৩০-৪০ টাকায়। শিম প্রতিকেজি ৪০-৫০ টাকা, বেগুন ৫০-৬০ টাকা, করলা ৮০ টাকা, বরবটি ৭০ টাকা, টমেটো ৪০-৫০ টাকা, শসা ৫০-৬০ টাকা, মুলা ২০-২৫ টাকা, শালগম ২০-৩০ টাকা, গাজর ২৫-৩০ টাকা, কুমড়া ২০ টাকা এবং আলু ২০-২৫ টাকায় পাওয়া যাচ্ছে।

© All rights reserved © 2020 Holybd24.com
Design & Developed BY Serverneed.com