পহেলা বৈশাখের আগেই বাজার বেসামালহিমাগারে রাখা জোড়া ইলিশের দাম ৭ হাজার টাকা

প্রকাশিত হয়েছে : ২:৪৭:১২,অপরাহ্ন ১১ এপ্রিল ২০১৯ | সংবাদটি ২০ বার পঠিত

হলিবিডি ডেস্কঃ দরজায় কড়া নাড়ছে পহেলা বৈশাখ। দু’দিন পরেই বাঙালির প্রাণের উৎসব বর্ষবরণ। চলছে নানা প্রস্তুতি। এর আগেই প্রভাব পড়েছে ইলিশের বাজারে। অন্য বছরের ন্যায় এবারও বেসামাল হয়ে উঠেছে খুলনার ইলিশ বাজার। দেড় কেজি সাইজের হিমাগারে রাখা জোড়া ইলিশের দাম হাঁকানো হচ্ছে সাত হাজার টাকা। প্রতিবারের ন্যায় এবারও ব্যবসায়ীরা ইলিশের সরবরাহ কম থাকার কারণ দেখিয়ে আকাশ ছোঁয়া দাম চাচ্ছে। ফলে বর্ষবরণ উৎসবে এবারও সাধারণের নাগালের বাইরে থেকে যাচ্ছে ইলিশ। পহেলা বৈশাখকে পুঁজি করে অধিক লাভের আশায় হাঁকানো হয়েছে ইলিশের দাম এমনই মন্তব্য করেছেন ভোক্তারা।

গতকাল বুধবার নগরীর ময়লাপোতা মোড়স্থ কেসিসি সন্ধ্যা বাজারে গিয়ে দেখা যায়, হিমাগারে রাখা প্রায় দেড় কেজি সাইজের ইলিশ আড়াই হাজার টাকা, এক কেজি সাইজের ২ হাজার টাকা, ৭০০ থেকে ৮০০ গ্রাম সাইজের ১২শ’ টাকা, ৫০০ থেকে ৬০০ গ্রাম সাইজের ১ হাজার টাকা, ৪০০ গ্রাম সাইজের ৮০০ টাকা এবং সদ্যধরা (টাটকা) ইলিশ ১ কেজি সাইজের ২ হাজার থেকে ২২শ’ টাকা, ৮০০ থেকে ৯০০ গ্রাম সাইজের ১৫শ’ থেকে ১৬শ’ টাকা, ৫০০ থেকে ৬০০ গ্রাম সাইজের ১ হাজার থেকে ১২শ’ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। অথচ এক সপ্তাহ আগে হিমাগারে রাখা প্রায় দেড় কেজি সাইজের ইলিশ ২ হাজার থেকে ২২শ’ টাকা, এক কেজি সাইজের ১৫শ’ থেকে ১৬শ’ টাকা, ৭০০ থেকে ৮০০ গ্রাম সাইজের ৮শ’ থেকে ১ হাজার টাকা, ৫০০ থেকে ৬০০ গ্রাম সাইজের ৭শ’ টাকা, ৪০০ গ্রাম সাইজের ৫শ’ থেকে ৬শ’ টাকা এবং সদ্য ধরা (টাটকা) ইলিশ ১ কেজি সাইজের ১৫শ’ থেকে ১৮শ’ টাকা, ৮০০ থেকে ৯০০ গ্রাম সাইজের ১ হাজার থেকে ১২শ’ টাকা, ৫০০ থেকে ৬০০ গ্রাম সাইজের ৮শ’ থেকে ৯শ’ টাকা দরে বিক্রি হয়।

একাধিক ব্যবসায়ীর সাথে আলাপকালে জানা যায়, বরিশাল, ভোলা, পাথরঘাটা, চরখালী, বেকুটিয়াসহ বিভিন্ন অঞ্চলের ইলিশ খুলনার চাহিদা মেটায়। একাধিক ব্যবসায়ী বলেন, এখন ইলিশের মৌসুম না হওয়ায় ইলিশ ধরা পড়ছে কম। এ কারণেই বাজারে টাটকা ইলিশের সরবরাহ কম।

নগরীর ময়লাপোতা মোড়স্থ কেসিসি সন্ধ্যা বাজারের ব্যবসায়ী শাহজালাল ফিসের স্বত্বাধিকারী মোঃ আনোয়ার হাওলাদার বলেন, ‘সাধারণত আষাঢ়, শ্রাবণ, ভাদ্র ও আশ্বিন মাসে নদীতে ইলিশ ধরা পড়ে। এখন ইলিশ ধরা মৌসুম না হওয়ায় বাজারে সরবরাহ অনেক কম। তিনি বলেন, বাজারে কোল্ড স্টোরে রাখা ইলিশের পরিমাণ বেশি। শাহজালাল ফিসের আরেক স্বত্বাধিকারী মোঃ কবির হাওলাদার একই মন্তব্য করেন।

নগরীর ময়লাপোতা মোড়স্থ কেসিসি সন্ধ্যা বাজারের আসা ক্রেতা মোঃ জামিল হোসেন বলেন, ‘পহেলা বৈশাখকে পুঁজি করে ইলিশের চড়া দাম হাঁকানো হচ্ছে। তিনি বলেন, টাটকা ইলিশের কথা বলে ক্লোল্ড স্টোরে রাখা ইলিশ বাজারে বিক্রি করা হচ্ছে।’ বাজারে আসা আরেক ক্রেতা মোঃ আবু জাফর বলেন, ‘ইলিশের চড়া দামে বিক্রি হচ্ছে।

About rezwan rezwan

https://gnogle.ru/project/edit/102
WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com