এই মাত্র পাওয়া খবর
|
সর্বশেষ
ফেঞ্চুগঞ্জে কয়েস নয়, নৌকার পক্ষে প্রচারণা, এ নিয়ে এলাকায় তোলপাড়         ছকাপন যুব সমাজের উদ্দ্যোগে বিজয় দিবস উদযাপন         সিলেটের ফেঞ্চুগঞ্জে রুমন ও সোহেল স্মৃতি স্পোর্টিং ক্লাব এর ফাইনাল খেলা অনুষ্টিত।         বিজয় দিবসে বঙ্গবন্ধু লেখক সাংবাদিক ফোরাম সিলেট জেলা শাখার শ্রদ্ধাঞ্জলি         জামেয়া মোহাম্মদীয়া চিলারকান্দি মাদরাসায় বিজয় দিবস উদযাপন         দারুল উলূম সিলেট মাদ্রাসায় মহান বিজয় দিবস পালন         সিলেট ৩ আসনের ধানের শীষের প্রার্থী শফি চৌধুরীর গণসংযোগ।         নারীদের অবদানে রাজশাহী আরও এগিয়ে যাবে : মেয়র লিটন         ২৪ থেকে ২৬ ডিসেম্বরের মধ্যে সশস্ত্র বাহিনী মোতায়েন         বাংলাদেশ জিজ্ঞাসা || কে পাচ্ছেন কোটি টাকা?         ড. কামালের ওপর হামলা ফৌজদারি অপরাধ, গ্রেফতারের ক্ষমতা আছে সেনাবাহিনীর-কে এম নূরুল হুদা         ভোট চাইলেন চরমোনাই পীর         আ.লীগের ইশতেহার ঘোষণা ১৮ তারিখ         ওয়ানডেতে সাফল্য : বিশ্বে তৃতীয় বাংলাদেশ         ব্যারিস্টার মাহাবুব উদ্দিন খোকন গুলিবিদ্ধ, থমথমে নোয়াখালী        

‘ওয়ার্নারের এই অবস্থার জন্য আমিই দায়ী’

প্রকাশিত হয়েছে : ৭:৩৯:১০,অপরাহ্ন ০১ এপ্রিল ২০১৮ | সংবাদটি ১৩১ বার পঠিত

হলিবিডি স্পোর্টস ডেস্ক : অস্ট্রেলিয়ার মারকুটে ওপেনার ডেভিড ওয়ার্নারের বল টেম্পারিংয়ের কাণ্ডের জন্য নিজেকেই দুষছেন স্ত্রী ক্যানিডস ওয়ার্নার। মানসিক চাপ থেকে ওয়ার্নার এমন কাণ্ড করেছেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। তবে সিডনি সানডে টেলিগ্রাফকে ক্যানডিস বলেন, ‘ওয়ার্নারের এই অবস্থার জন্য আমিই দায়ী। যা ভেবে আমি শেষ হয়ে যাচ্ছি, পুরোই শেষ হয়ে যাচ্ছি।’

ওয়ার্নারের স্ত্রী ক্যানডিস কেন নিজেকে দায়ী করছেন, সেই ব্যাখাও অবশ্য দেননি তিনি। তবে ধারণা করা হচ্ছে, অতীতে একটা সময় নিউজিল্যান্ডের রাগবি খেলোয়াড় সনি বিল উইলিয়ামসের সাথে সম্পর্ক ছিল ক্যানডিসের। যা নিয়ে দক্ষিণ আফ্রিকার সমর্থকদের সামনে বিদ্রুপের মুখে পড়তে হয় ক্যানডিসকে। টেস্ট চলাকালীন দর্শকদের একটি অংশ বিলের মুখোশ পরে মাঠেও এসেছিল। এটি চোখ এড়ায়নি ওয়ার্নার ও ক্যানিডসের। তাই সব মিলিয়ে বেশ চাপেই ছিলেন ওয়ার্নার-ক্যানডিস জুটি। সেই চাপ থেকেই ওয়ার্নার এমন কান্ড করেছেন বলে ধারণা করা হচ্ছে।

তবে ওয়ার্নারের ভুলের জন্য কোনো অজুহাত দেননি ক্যানডিস। তিনি বলেন, ‘যতটা পারে আমাকে এবং আমাদের সন্তানদের রক্ষা করেন ওয়ার্নার। খেলা শেষ করে সে যখন বাড়ি ফিরতো, শয়নকক্ষে আমাকে অশ্রু চোখে দেখতো। তখন মেয়েরা শুধু আমার দিকে তাকিয়ে থাকতো, যা ছিল হতাশাজনক। তবে যখন কেপটাউন বা পোর্ট এলিজাবেথে ছিলাম আমরা, ডেভ বাড়ি আসতো তার সামনেই আমি শক্ত থাকতাম এবং খেলার বিষয়েই তার সাথে ব্যস্ত থাকতাম।’

ওয়ার্নারের বল টেম্পারিংয়ের জন্য হতাশ হয়েছে অস্ট্রেলিয়ার ক্রিকেটপ্রেমীরা। এজন্য অস্ট্রেলিয়ানদের কাছে দুঃখপ্রকাশ করেছেন ক্যানডিস, ‘আমি জানি অস্ট্রেলিয়ানরা কতটা ব্যথিত হয়েছে। এজন্য আমরা দুঃখিত।’

About loskor @loskor

Leave a Reply

Your email address will not be published.