Main Menu

সাউথ আফ্রিকা হস্তান্তর নয় সকল অভিবাসীদের জন্য ক্যাম্প নির্মান করা হবে। জাতিসংঘের শরনার্থী বিষয়ক হাইকমিশনার

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ ইউরোপ,আমেরিকা,অস্ট্রেলিয়া কিংবা কানাডা নয়, সাউথ আফ্রিকার অভিবাসীদের জায়গা হবে রিফুজি ক্যাম্পে।এরইমধ্যে ক্যাম্প নির্মানের জন্য সরকারের সংশ্লিষ্ট মন্রনালয়ের সাথে বৈঠকে বসবে জাতিসংঘের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। এমন কথা বলেছেন,জাতিসংঘের শরনার্থী বিষয়ক হাই কমিশনার মাইকেল টাইসন।

এইদিকে,আদালতের নির্দেশ,পুলিশের হামলা ও গ্রেপ্তারকে উপেক্ষা করে অবস্থান ধর্মঘট চালিয়ে যাচ্ছে সাউথ আফ্রিকায় বসবাসরতো বেশ কিছু অভিবাসী।তারা নতুন করে প্রিটোরিয়ার সানিসাইডে জাতিসংঘের মুল অফিসের সামনে এই ধর্মঘট চালিয়ে যাচ্ছে। তারা বলছে যত কষ্ট হউক তারা তাদের দাবী থেকে সরে আসবেনা।

ইউএনএইচসিআরের কেউ কেউ দাবি করেছে যে,অভিবাসীরা জাতিসংঘ কর্তৃক সহায়তা পাচ্ছেনা বলে বিতর্ক করেছে। গত সপ্তাহে কেপটাউন এবং প্রিটোরিয়ায় ইউএনএইচসিআর কার্যালয় থেকে বিদেশী নাগরিকদের অন্য দেশে স্থানান্তরিত করার দাবিতে তিন সপ্তাহেরও বেশি সময় ধরে শিবির করছিল, পুলিশ তাদের জোরপূর্বক অপসারণ করেছে। আদালত আদেশ জারি করার কারণে পুলিশ যে সহিংস পদ্ধতিতে তাদের অপসারণ করছিলো তার জন্য সমালোচনা করা হয়েছিল। ইউএনএইচসিআর আঞ্চলিক পরিচালক, ভ্যালেন্টিন তাপসোবা এই কথা বলেন।

“স্থানান্তর বা পুনর্বাসন বা সরিয়ে নেওয়া সহ আপাতত কিছুই করা সম্ভব নয়।কারণ সাউথ আফ্রিকাতে আমাদের ২৬৮,০০০ শরণার্থী এবং আশ্রয়প্রার্থী রয়েছে। আমরা কোথায় ২৬৮,০০০ লোককে নিয়ে যাব? কোন দেশে নিয়ে যাবো? কারা এদের পূর্ণবাসন করবে? প্রিটোরিয়া বা কেপটাউনে যারা ইউএনএইচসিআর অফিসের সামনে রয়েছেন, তারা পুরো পরিবারের জন্য উপযুক্ত আবাসন পাবে তা নিশ্চিত করার জন্য আমরা সরকারী সহায়তা এবং সমস্ত স্টেকহোল্ডারদের সাথে একটি অবস্থানের কথা চিন্তা করছি। তবে তারা এটি সম্পর্কে শুনতে চান না। তারা যা চায় তা কেবল স্থানান্তরিত করা এবং আমরা তা করতে পারি না।
তাই সকল অভিবাসীদের জন্য রিফুজি ক্যাম্প নির্মান করা হবে৷ইতিমধ্যে আমরা এই বিষয়ে সরকারের সাথে কথা বলে নিরাপদ জায়গা পরিমাপ করবো এবং অভিবাসীরা ঐ ক্যাম্পে সকল সুযোগ সুবিধা নিয়ে বসবাস করবে।






Related News

Comments are Closed