Main Menu

তাহিরপুরে টাকা আত্মসাতের মামলায় এক যুবক গ্রেফতার

আমির হোসেন: সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলায় সাড়ে ৩ লক্ষ টাকা আত্মসাতের মামলায় জাকির হোসেন (২৯) নামের এক যুবককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। পুলিশের হাতে আটককৃত যুবক উপজেলার ৫ নং বাদাঘাট ইউনিয়নের নাগরপুর গ্রামের মোস্তফা মিয়ার ছেলে। মামলার এজাহার ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, উপজেলার বাণিজ্যিক কেন্দ্র বাদাঘাট বাজারে হাজী রইছ উদ্দিনের মালিকানাধীন মেসার্স হোসাইন এন্টারপ্রাইজের ম্যানেজার কাম কর্মচারী হিসেবে কাজ করতো জাকির।
সেই সুবাদে জাকিরকে বিভিন্ন সময় নগদ টাকা দিয়ে ব্যাংকে পাঠানো হতো টিটি করার জন্য।

গত ১০অক্টোবর সকালে জাকিরকে মোটরসাইকেলসহ সাড়ে তিন লক্ষ টাকা দিয়ে সুনামগঞ্জ পাঠানো হয় টিটি করার জন্য। সকাল থেকে দুপুর হয়ে গেলেও জাকিরের কোন খোঁজ না পাওয়ায় জাকিরের মোবাইল ফোনে কল দিলে সে টালবাহানা করে সময় ক্ষেপণ করে। পরে বিকেলে জাকিরের বাড়িতে গিয়ে খোঁজ নিলে জাকিরের বাবা মোস্তফা মিয়া জানায়, জাকির বাদাঘাট বাজারে আছে। এসময় হাজী রইছ উদ্দিনের ছেলে আতাউর রহমান তাকে বাজারে আনোয়ার হোসেনের দোকানের সামনে পেয়ে টিটি করেছে কিনা জানতে চাইলে সে বিভিন্ন তাল বাহানার কথা বলে। প্রথমে সে বলে টাকা খরচ করে ফেলেছি, আবার বলে টাকা হারিয়ে গেছে, এবং বলে ডাকাতে নিয়ে গেছে, আবার কখনো বলে টাকা নেইনি।

এসব করে টালবাহানা শুরু করে বেশ কয়েকদিন সময় এড়িয়ে যান। পরে বিষয়টি এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিদের নিয়ে বিষয়টি মিমাংসা করার জন্য সালিশে বসলে সালিশী ব্যাক্তিবর্গ টাকা আত্মসাতের বিষয়টি প্রমাণিত হয়। পরে তাকে টাকা ও মোটরসাইকেল ফেরত দেয়ার কথা বললে সে এক সপ্তাহের সময় নিয়ে এলাকা ছেড়ে পালিয়ে যায়।

পলাতক থেকেও সে বিভিন্ন লোকের সঙ্গে বলে টাকা নিয়েছি তারা আমার কি করতে পারে করুক, আমি এসব ভয় পাইনা, এমনকি মালিক পক্ষকে বিভিন্ন ধরণের হুমকি ধামকি দিয়েছে নিয়মিত। এঘটনায় গত ১০ অক্টোবর হোসাইন এন্টারপ্রাইজের স্বত্বাধিকারী হাজী রইছ উদ্দিন বাদী হয়ে তাহিরপুর থানায় প্রতারক জাকিরকে আসামি করে একটি অভিযোগ দায়ের করেন।

অভিযোগের প্রেক্ষিতে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জাকির বাড়ি এসেছে খবর পেয়ে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা তাহিরপুর থানার এস আই মোহাম্মদ হুমায়ুন কবিরের নেতৃত্বে পুলিশের একটি দল গতকাল মঙ্গলবার মধ্যরাতে প্রতারক জাকিরকে তার বাড়ি থেকে গ্রেফতার করেন।
তাহিরপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ আতিকুর রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেছেন, মেসার্স হোসাইন এন্টারপ্রাইজের স্বত্বাধিকারী হাজী রইছ উদ্দিন বাদী হয়ে জাকিরের বিরুদ্ধে থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন তাহিরপুর থানার মামলা নাম্বার ০৩, তারিখ ০৬/১৯ইং। গ্রেফতারকৃত জাকিরকে ৬ নভেম্বর বুধবার দুপুরে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। স্থানীয় এলাকাবাসী জানিয়েছেন, জাকির ইতিপূর্বেও বাদাঘাট বাজারে একাধিক দোকানে কর্মচারী থাকাকালীন দোকানে চুরি করার দায়ে তাকে চাকরীচ্যুত করা হয়েছিল।






Related News

Comments are Closed