Main Menu

খুলনা বিভাগে নারী ও শিশু নির্যাতনের ১৫২৬৮ মামলা বিচারাধীন

হলিবিডি ডেস্কঃ খুলনা বিভাগের ১০ জেলায় নারী ও শিশু নির্যাতনের ঘটনায় দায়েরকৃত ১৫২৬৮টি মামলা নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে বিচারাধীন রয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে খুলনায় ৪ হাজার ৫৩৭টি, বাগেরহাটে ৩ হাজার ১৭৮, যশোরে ১ হাজার ৫৫৫, সাতক্ষীরায় ১ হাজার ৬২২, ঝিনাইদহে ১ হাজার ৩১৯, চুয়াডাঙ্গায় ৫৩৮, মেহেরপুরে ৬০৩, কুষ্টিয়ায় ৪১০, মাগুরায় ১ হাজার ৩২, নড়াইলে ৪৭৪টি।

রোববার জাতীয় সংসদের প্রশ্নোত্তর পর্বে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক এ তথ্য জানান। চলতি বছরের ৩১ মার্চ পর্যন্ত নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে বিচারাধীন মামলার চিত্র উপস্থাপনের সময় তিনি জানান, দেশে এক লাখ ৬৪ হাজার ৫৫১টি মামলা বিচারাধীন রয়েছে। গতকাল সকালে স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে অধিবেশনের শুরুতে প্রশ্নোত্তর টেবিলে উপস্থাপিত হয়। চট্টগ্রাম-৪ আসনের সংসদ সদস্য দিদারুল আলমের লিখিত প্রশ্নের জবাবে আইনমন্ত্রী নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে সারাদেশে বিচারাধীন মামলার জেলাওয়ারি তথ্য উপস্থাপন করেন।

মন্ত্রীর দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে সবচেয়ে বেশি মামলা ঢাকায়। ১৩ হাজার ৭৭৭টি মামলা বিচারাধীন রয়েছে রাজধানীকেন্দ্রীক এ জেলার নয়টি ট্রাইব্যুনালে। এছাড়া নারায়ণগঞ্জে ১ হাজার ৬৭৯, গাজীপুরে ৩ হাজার ৭৭৮, মানিকগঞ্জে ২ হাজার ৩২১, মুন্সীগঞ্জে ১ হাজার ২১৫, নরসিংদীতে ১ হাজার ৯৯২, কিশোরগঞ্জে ২টি ট্রাইব্যুনাল ২ হাজার ২৩৫, টাঙ্গাইলে ৩ হাজার ৬, ফরিদপুরে ১ হাজার ৮৭২, রাজবাড়ীতে ১ হাজার ১২৬, গোপালগঞ্জে ১ হাজার ৭৯২, মাদারীপুরে ১ হাজার ৪৮৩, শরীয়তপুরে ৩৫৯ টি মামলা বিচারাধীন রয়েছে। ময়মনসিংহে ১ হাজার ৯৫৬, নেত্রকোণায় ২ হাজার ৬৭৩, জামালপুরে ২ হাজার ১২৮, শেরপুরে ১ হাজার ৯০৮, চট্টগ্রামে (৭টি ট্রাইব্যুনাল) ১২ হাজার ৪৭৭, ফেণীতে ১ হাজার ৩৯২, নোয়াখালীতে (২ টি ট্রাইব্যুনাল) ৬ হাজার ৬৫৩, লক্ষীপুরে ১ হাজার ৭২৮, কক্সবাজারে ৭ হাজার ৯৫৮, কুমিল্লায় ৪ হাজার ১৬৯, চাঁদপুরে ১ হাজার ৩১০, ব্রাহ্মণবাড়ীয়ায় ৪ হাজার ৮৬৯, রাঙ্গামাটিতে ৫২৮, বান্দারবানে ৬২৪, খাগড়াছড়িতে ৩৬২, রাজশাহীতে ১ হাজার ৩২০, নওগাঁয় ২ হাজার ৮৮০, জয়পুরহাটে ৬০৭, চাঁপাইনবাবগঞ্জে ৪২৯, বগুড়ায় ২ হাজার ৭২৯, সিরাজগঞ্জে ৪ হাজার ৪০৮, পাবনায় ১ হাজার ৭৮১, নাটোরে ১ হাজার ৬২৩, বরিশালে ১ হাজার ৯৮০, ঝালকাঠিতে ৪৫৪, পিরোজপুরে ৭১৯, পটুয়াখালীতে ১ হাজার ৮০২, ভোলায় ৫ হাজার ৩, বরগুনায় ২ হাজার ৬২৩, সিলেটে ২ হাজার ৫৫, মৌলভীবাজারে ২ হাজার ৬৪১, সুনামগঞ্জে ১ হাজার ৬৫২, হবিগঞ্জে ৫ হাজার ৬৬৯, রংপুরে ৬ হাজার ৮০, দিনাজপুরে ২ হাজার ৯৩৬, লালমনিরহাটে ১ হাজার ৩৯৪, নীলফামারীতে ৩ হাজার ৭৯৭, পঞ্চগড়ে ৪৭৪, ঠাকুরগাঁওয়ে ১ হাজার ৫৮৮, গাইবান্ধায় ৩ হাজার ২৩৪, কুড়িগ্রামে ১ হাজার ৯৩৫টি মামলা বিচারাধীন রয়েছে। জামালপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য আবুল কালাম আজাদের এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী জানান, দেশের বিভিন্ন আদালতে চলতি বছরের ৩১ মার্চ পর্যন্ত বিচারাধীন মোট মামলার সংখ্যা ৩৫ লাখ ৮২ হাজার ৩৪৭টি। অপর এক প্রশ্নের জবাবে আইনমন্ত্রী জানান, ১৭৯৯ সাল থেকে ২০১৯ সালের ১০ জুন পর্যন্ত বাংলাদেশে ১ হাজার ১৪৮টি আইন প্রচলিত রয়েছে।

মন্ত্রণালয়ের শূন্য পদ ৩০৮৩৯২টি: ঝিনাইদহ-৪ আসনের আনোয়ারুল আজীমের প্রশ্নের জবাবে জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন জানান, বর্তমানে সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ে তিন লাখ ৮ হাজার ৩৯২টি পদ শূন্য রয়েছে। শূন্যপদ পূরণের লক্ষে পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। তবে আদালতে মামলা, নিয়োগ বিধি না হওয়া এবং পদোন্নতিযোগ্য প্রার্থী না পাওয়ায় কিছু শূন্য পদ পূরণ করা যায় না বলে প্রতিমন্ত্রী জানান। তিনি জানান, ৩৯তম বিসিএসের মাধ্যমে বিভিন্ন ক্যাডারের ৪৭৯২টি পদে নিয়োগের সুপারিশ পাঠানো হয়েছে। এ ছাড়া ৪০তম বিসিএসের মাধ্যমে ১৯৯৯টি শূন্য পদে নিয়োগের কার‌্যক্রম চলছে।

৫০টির বেশি দেশে মাছ রপ্তানি : কুড়িগ্রাম-১ আসনের আছলাম হোসেন সওদাগরের প্রশ্নের জবাবে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী আশরাফ আলী খান খসরু জানান, বাংলাদেশ থেকে ৫০টির বেশি দেশে মৎস্য ও মৎস্যজাতপণ্য রপ্তানি করা হয়। চলতি ২০১৮-১৯ অর্থবছরের ১১ মাসে (মে ২০১৯) বিভিন্ন দেশে প্রায় ৬৮ হাজার ৬৫৫ মেট্রিক টন মৎস্য ও মৎস্যপণ্য রপ্তানি করে তিন হাজার ৮৪৫ কোটি টাকা রাজস্ব অর্জিত হয়েছে। এর মধ্যে ৩১ হাজার ১৫৮ মেট্রিক টন চিংড়ি রপ্তানি করে ২ হাজার ৯১৬ কোটি এবং ৩৫ হাজার ১৪৮ মেট্রিক টন ফিনফিস রপ্তানি করে ৮৯৯ কোটি ৩০ লাখ টাকা আয় হয়েছে।






Related News

Comments are Closed