Main Menu

ঈদযাত্রার বাসে মশানাশক স্প্রের নির্দেশ

হলিবিডি ডেস্কঃ ঈদযাত্রীদের এডিস মশা থেকে বাঁচাতে প্রতিটি বাস ছাড়ার আগে মশানাশক স্প্রে করা এবং বাস টার্মিনালগুলো পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখার নির্দেশ দিয়েছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

সোমবার সচিবালয়ে ঈদুল আজহা উদযাপনে সড়কপথে ঘরমুখো মানুষের যাতায়াত নির্বিঘ্ন করতে অংশীজনদের সঙ্গে সমন্বয় সভা শেষে তিনি এ নির্দেশনার কথা জানান। ওই সভায় সড়ক-মহাসড়কে পশুর হাট না বসানো এবং ফিটনেসবিহীন গাড়ি যাতে রাস্তায় চলাচল করতে না পারে, সেজন্য আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে পদক্ষেপ নিতে নির্দেশ দেন। সভায় পরিবহন মালিক-শ্রমিক নেতারা ঈদে বাস ভাড়া বাড়ানোর প্রস্তাব দেন। এমনকি মৌসুমি ভাড়া আদায়ের কথাও তোলেন। যদিও ওই প্রস্তাব সরাসরি নাকচ করে দেন মন্ত্রী।

সভায় সাবেক নৌমন্ত্রী ও বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের কার্যকরী সভাপতি শাজাহান খান, গাজীপুরের মেয়র জাহাঙ্গীর আলম, সড়ক ও জনপথ অধিদফতরের প্রধান প্রকৌশলী ইবনে আলম হাছানসহ সংশ্লিষ্টরা অংশ নেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, টার্মিনালগুলোয় পরিচ্ছন্নতা রক্ষা, মশক নির্মূলের পর্যাপ্ত ব্যবস্থা গ্রহণে আমি ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনকে অনুরোধ জানাচ্ছি। প্রতিটি বাস ছাড়ার আগে বাসে মশানাশক স্প্রে করার জন্য মন্ত্রণালয় থেকে চিঠি দেয়া হয়েছে। টার্মিনাল কর্তৃপক্ষ এবং মালিক সমিতি ইতিমধ্যে এ নির্দেশনা বাস্তবায়নে সভা করেছে।

ঈদে বাস ভাড়া বাড়ানোর দাবি তোলেন বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির মহাসচিব খন্দকার এনায়েত উল্লাহ। তিনি বলেন, মৌসুমি ভাড়ার বিষয়টি ভাবার সময় এসেছে। মৌসুমি বলতে ঈদসহ অন্যান্য উৎসবকে কেন্দ্র করে ভাড়া বাড়ে, সেটি চিন্তা করার বিষয় আছে। পাঁচ বছর ধরে ঢাকা শহরে গাড়ি ভাড়া বাড়েনি এবং চার বছর ধরে দূরপাল্লার কোনো গাড়ির ভাড়া বাড়েনি।

অথচ পাঁচ বছরে জিনিসপত্রের দাম কোথায় গিয়ে পৌঁছেছে? এ সময় ওবায়দুল কাদের তাকে থামিয়ে বলেন, ঈদের আগে এসব নিয়ে আলোচনা করবেন না। পরে দেখা যাবে। এখন ভাড়া বাড়ানো যাবে না। ভাড়া বাড়ানো হলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

তিনি বলেন, প্রতি টার্মিনালে বিআরটিএ’র মোবাইল কোর্ট ও ভিজিল্যান্স টিম কার্যকর থাকবে। অতিরিক্ত ভাড়া আদায়কারী বাস সার্ভিসের বিরুদ্ধে অভিযোগ পাওয়া গেলে মোবাইল কোর্ট ব্যবস্থা নেবে। কোরবানির ঈদ, এটা সেক্রিফাইজের ঈদ, কাজেই আমি মালিকদেরকে ত্যাগ স্বীকারের আহ্বান জানাচ্ছি।

ওই সভায় শাজাহান খান বলেন, বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআরটিএ) প্রত্যেক রুটে যে ভাড়া নির্ধারণ করে দিয়েছে, সেই ভাড়া থেকে কম নেয়া হয়। ঈদের সময় মালিকরা মূল ভাড়া আদায় করে। তাতে মনে হয় তারা বেশি ভাড়া আদায় করছে। আসলে বেশি ভাড়া নিচ্ছে না। এ সময় তিনি ঈদে বিমান ভাড়ার বিষয়টি তুলে ধরেন। সাবেক এ মন্ত্রী বলেন, আমাদের যত গাড়ি তত ড্রাইভার নেই।

হাইওয়েতে গাড়িতে দু’জন করে ড্রাইভার রাখার বিষয়টি আমরা ভেবেছি। যত দ্রুত বিআরটিএ লাইসেন্স দিতে পারবে, তত দ্রুত এই সমস্যার সমাধান হবে। সেটার জন্য তারা কাজ করছেন। এখন পর্যন্ত দৃশ্যমান যে, আমরা ড্রাইভিং স্কুল কিংবা ভালো ইন্সট্রাক্টর সৃষ্টি করতে পারিনি। বর্তমানে ইন্সট্রাকটর আছে ১২৮ জন, কিন্তু আমাদের লাগবে এক হাজার জন।

ঈদে বুড়িগঙ্গা সেতুতে যানজটের আশঙ্কা প্রকাশ করে শাজাহান খান বলেন, বুড়িগঙ্গা সেতুর ওপর একটামাত্র টোল কাউন্টার। এক একটা টোল সংগ্রহে ২০ থেকে ৩০ সেকেন্ড লাগে। আর ঈদের সময় তো অনেক গাড়ি থাকবে। ফলে কী পরিস্থিতি সেখানে তৈরি হবে আল্লাহ জানেন। এ বিষয়ে চিন্তা করতে হবে।

সভায় ক্ষতিগ্রস্ত সড়ক মেরামত কাজ ঈদের অন্তত তিন দিন আগে শেষ করার তাগিদ দিয়ে সড়কমন্ত্রী বলেন, দিবারাত্রি আমাদের লোকজনকে প্রস্তুত রাখতে হবে; যাতে অতিরিক্ত কাজ করে মেরামত করা যায়, সে রকম নিশ্চয়তা দিতে হবে।

কারণ জনগণ এমনিতেই একটা আতঙ্ক নিয়ে দেশের বাড়িতে যাচ্ছেন, সেখানে রাস্তার অবস্থাটা যদি পাসেবল না হয়, তাহলে দুর্ভোগ হবে। মন্ত্রী জানান, ঈদযাত্রার জন্য টঙ্গী-গাজীপুরের বিআরটিএ’র কাজ বন্ধ থাকবে। যাতে মেরামত কাজ যথাযথভাবে শেষ করা যায়, সেটি নিশ্চিত করতেও ব্যবস্থা নিতে হবে।

সড়কের পাশে পশুর হাট বসানোর ফলে যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, নিয়মের বাইরে পশুর হাট যেন না বসে, পশুর হাট নিয়ে যেন জনদুর্ভোগ না হয়, এসব বন্ধ করতে হবে যে কোনো মূল্যে। তিনি বলেন, কোরবানির পশুবাহী যানবাহন ধীরগতিতে চলে। ফিটনেসবিহীন গাড়ি পশু বহন করলে যানজটের আরও ঝুঁকি বাড়ায়। ফিটনেসবিহীন গাড়িতে পশু বহনের উৎসমুখ বন্ধ করা সমীচীন।

বিজিএমইএ’র নেতাদের উদ্দেশে তিনি বলেন, বিজিএমইএ’র অনুরোধে পোশাক শ্রকিদের জন্য ১৫১টি বাসের মধ্যে চট্টগ্রামে ২০টি বরাদ্দ দেয়া হয়েছে, যা প্রয়োজনে বাড়তে পারে। বিজিএমইএ তিন দিন পর্যায়ক্রমে ছুটি দেবে। এতে রাস্তায় চাপ কম পড়বে। তারা প্রতিশ্রুতি রক্ষা করবেন, এটা আমি আশা করি।

গাজীপুরের মেয়র জাহাঙ্গীর আলম জানান, গাজীপুরের সড়কে শৃঙ্খলা রক্ষায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পাশাপাশি স্বেচ্ছাসেবীরা কাজ করবেন।






Related News

Comments are Closed