Main Menu

আমিরাতের শ্রমবাজার খুলে যাচ্ছে

হলিবিডি প্রতিনিধিঃ বাংলাদেশি কর্মীদের জন্য কয়েক বছর ধরে বন্ধ থাকা শ্রমবাজার খুলে দেবে সংযুক্ত আরব আমিরাত (ইউএই)। গতকাল রোববার দুবাই ওয়ার্ল্ড সেন্টারে দুবাই এয়ার শোর ফাঁকে এক বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে এ ইঙ্গিত দিয়েছেন আবুধাবির যুবরাজ শেখ মুহাম্মদ বিন জায়েদ আল নাহিয়ান। বৈঠক শেষে প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান।

বৈঠকে শেখ হাসিনা জনশক্তি রপ্তানি বন্ধ থাকার বিষয়টি উত্থাপন করলে জবাবে শেখ মুহাম্মদ নাহিয়ান বলেন, ‘আপনার পরবর্তী আমিরাত সফরকালে আপনাকে এ প্রশ্নটি আর করতে হবে না।’ ইউএইর বাজারে বাংলাদেশ থেকে জনশক্তি রপ্তানি পাঁচ বছর ধরে স্থগিত হয়ে আছে।

বৈঠকে বাংলাদেশ থেকে ইউএইতে চাল রপ্তানির বিষয়েও আলোচনা হয়। প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ চাল উৎপাদনে উদ্বৃত্ত দেশ। আমরা বিভিন্ন দেশে চাল রপ্তানিও করি। জবাবে ইউএইর সশস্ত্র বাহিনীর উপ-সর্বাধিনায়ক শেখ মুহাম্মদ নাহিয়ান বলেন, চালের বিভিন্ন জাত দেখতে তারা একটি প্রতিনিধি দল বাংলাদেশে পাঠাবেন। এর আগে ‘দুবাই এয়ার শো ২০১৯’-এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যোগ দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

গতকাল সকালে দুবাইয়ের ভবিষ্যৎ বিমানবন্দরের (দুবাই আল মাকতুম আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর হিসেবেও পরিচিত) দুবাই ওয়ার্ল্ড সেন্টারে পাঁচ দিনব্যাপী ষোড়শ দ্বিবার্ষিক এই এয়ার শো শুরু হয়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সংযুক্ত আরব আমিরাতের ভাইস প্রেসিডেন্ট ও প্রধানমন্ত্রী এবং দুবাইয়ের শাসক শেখ মোহাম্মদ বিন রশিদ আল মাকতুমের আমন্ত্রণে এই এয়ার শোতে অংশ নেন। আগামী ২১ নভেম্বর পর্যন্ত প্রতিদিন বেলা ২টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত দুবাইয়ের আকাশে এয়ার শোটি অনুষ্ঠিত হবে।

এয়ার শো উপভোগসহ গতকাল প্রধানমন্ত্রী তার সম্মানে সংযুক্ত আরব আমিরাতে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ ইমরান আয়োজিত নৈশভোজে যোগ দেন। প্রধানমন্ত্রীর অবস্থানস্থল আবুধাবির শাংরি-লা হোটেলে এ আয়োজন করা হয়।

প্রধানমন্ত্রী আজ সোমবার আবুধাবিতে বাংলাদেশ দূতাবাসে সংযুক্ত আরব আমিরাতে কর্মরত বাংলাদেশিদের ভোটার তালিকা প্রণয়ন শুরু এবং স্মার্ট জাতীয় পরিচয়পত্র বিতরণে নির্বাচন কমিশনের অনুষ্ঠান উদ্বোধন করবেন। তিনি আগামীকাল মঙ্গলবার দেশে ফিরবেন।

১৯৮৯ সালে শুরু হওয়া দুবাই এয়ার শো এখন বিশ্বের বৃহত্তম এবং সবচেয়ে সফল এয়ার শো। এ বছর বিশ্বের ৮৭ হাজারের বেশি ট্রেড ভিজিটর এবং এক হাজার ৩শর বেশি এক্সিবিটর দুবাই ওয়ার্ল্ড সেন্টারে এ উপলক্ষে সমবেত হয়েছেন। এতে ১৬০ দেশ থেকে ১৬৫টি বিমান অংশ নিচ্ছে। এখানে বিশ্বের বিমান প্রস্তুতকারকরা তাদের নতুন মডেলের বিমান প্রদর্শন ও বিক্রি করেন। পাশাপাশি প্রাইভেট ও পাবলিক সেক্টরের কোম্পানিগুলো নতুন নতুন প্রযুক্তি, সুযোগ এবং এই শিল্পের প্রতিবন্ধকতাগুলো নিয়েও আলোচনা করেন।






Related News

Comments are Closed